অ্যাসাইনমেন্ট মূল্যায়নে কোনো শিক্ষক গাফিলতি করলে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে

করোনা মহামারীর জন্য সশরীরে ক্লাস-পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব না হওয়ায় ৩০ কার্যদিবসের সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে সংসদ বাংলাদেশ টেলিভিশনে পাঠদানের পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের মূল্যায়নের জন্য অ্যাসাইনমেন্ট নেওয়া হচ্ছে। কিন্তু অনেক শিক্ষার্থী ইউটিউব-ফেসবুক দেখে অ্যাসাইনমেন্ট লিখে জমা দিচ্ছে।

মঙ্গলবার মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের (মাউশি) মহাপরিচালক অধ্যাপক ড. সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক বলেন: কোনো শিক্ষার্থী যদি ইউটিউব-ফেসবুক থেকে উত্তর লিখে জমা দেয়, তাহলে সেটি অনৈতিক হবে। আমরা শিক্ষার্থীদের কোন কোন বিষয়ে পড়ালেখায় গ্যাপ রয়েছে, সেটি যাচাইয়ের জন্যই এ অ্যাসাইনমেন্টের ব্যবস্থা করেছি।

পড়াশুনা ও চাকরির খবর ☑️

তিনি আরো বলেনঃ সবাই যদি সব প্রশ্নের সঠিক উত্তর দেয়, তাহলে সবাইকেই তো ‘অতি উত্তম’ দিতে হবে। তখন শিক্ষার্থীদের কোন বিষয়ে সমস্যা, সেটি শিক্ষক বুঝবেন কীভাবে? সব ছাত্রছাত্রীর মূল্যায়ন এক হওয়ার সম্ভাবনা নেই। কেননা কেউ কপি করে উত্তর দিলে শিক্ষকরা সেটি বুঝতে পারেন। ফলে ওই শিক্ষার্থীকে আবারও অ্যাসাইনমেন্ট জমা দিতে হয়।

এসাইনমেন্ট মূল্যায়নের বিষয়ে তিনি হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেনঃ অ্যাসাইনমেন্ট মূল্যায়নে কোনো শিক্ষক যদি গাফিলতি করেন, তাহলে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

x